চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের দিকে একধাপ এগিয়ে বাংলাদেশ

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের দিকে একধাপ এগিয়ে বাংলাদেশ – Published by Somoyer Alo

 

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের যুগ। যেখানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি একত্রিত হবে অন্যান্য সকল প্রযুক্তির সঙ্গে। বিশেষ করে ছয়টি ক্ষেত্রে নতুন প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন ঘটাবে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব, আর তা হলো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, রোবটিক্স, ইন্টারনেট অব থিংস (আইওটি), মনুষ্যবিহীন যানবাহন, ত্রি-ডি মুদ্রণ এবং ন্যানো প্রযুক্তি যা সেন্সর, ইন্টারনেট কানেক্টিভিটি এবং বিগ ডেটার সাথে সম্পূর্ণরূপে সংযুক্ত থাকবে।
চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে বিভিন্ন ধরনের নতুন প্রযুক্তি অন্তর্ভুক্ত থাকবে যা শারীরিক, জৈবিক এবং ডিজিটাল বিশ্বকে এমনভাবে একত্রিত করবে এবং বিগ ডেটা ব্যবহার করে জীবনের সমস্ত ক্ষেত্রকে প্রভাবিত করবে। কৃষি খাতে বিশেষ করে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর জীবনমানে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের প্রভাব পরিলক্ষিত হতে পারে ব্যাপকভাবে।
তিনটি উপায় রয়েছে যার মাধ্যমে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব কৃষি খাতে একটি বড় প্রভাব ফেলবে। প্রথমত, সুনির্দিষ্ট অপ্টিমাইজেশন কৃষিতে বর্তমান অনেক সমস্যার সমাধান করবে। বিশ্বব্যাপী খাদ্য উৎপাদনের পরিপ্রেক্ষিতে সমগ্র জনসংখ্যার জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য উৎপাদিত হয়, তবুও উৎপাদিত খাদ্যের ৩০-৫০% অপচয় হয়। দ্বিতীয়ত, মানবসম্পদসহ গ্রামীণ উৎপাদনের উপাদানগুলোর পরিবর্তন কৃষিতে বড় ধরনের প্রভাব ফেলবে। পুঁজি, শ্রম, এবং প্রযুক্তিগত সংস্থান, যা পূর্ববর্তী প্রজন্মের মধ্যে কৃষিকাজের নিরুৎসাহিত হওয়ার প্রবণতার তৈরি করেছিল, তা পরিবর্তিত হয়ে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের বিভিন্ন ধরনের নতুন প্রযুক্তির কারণে উৎসাহ তৈরি করবে। তৃতীয়ত, চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের প্রযুক্তিসমূহ আবহাওয়া সম্পর্কিত সমস্যার ওপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলবে। কৃষি ব্যবস্থাপনা এবং উৎপাদন সম্পর্কিত সমস্যাগুলো বিশেষ করে ইনপুট পরিমাপ, রোগ, কীটপতঙ্গ এবং কৃষি ব্যবস্থাপনার জন্য কীটপতঙ্গ সম্পর্কিত সমস্যাগুলোর সমাধানে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত হবে।
চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে কৃষি উৎপাদনের পরিবর্তনগুলো প্রাথমিকভাবে স্মার্ট ফার্মিং প্রযুক্তিসহ কৃষি সুবিধাগুলোতে ঘটবে। এই প্রবণতার প্রতিক্রিয়া হিসেবে ভবিষ্যতের কৃষি উচ্চপ্রযুক্তি শিল্পে বিকশিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে যেখানে সিস্টেমগুলো সেন্সর কানেক্টিভিটি, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং বিগ ডেটার সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছে।
ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকার বর্তমান বাংলাদেশ সরকার সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়ে ডিজিটাল প্রকল্পটির যাত্রা শুরু করেছে। যা কৃষিতে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের প্রযুক্তিসমূহের একটি ব্যাপক বিস্তার ঘটাবে বলে আশা করা হচ্ছে। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের অন্যতম মাধ্যম সেন্সর, ইন্টারনেট অব থিংস এবং ডেটা ব্যবহার করে কৃষিতে বড় ধরনের রূপান্তর ঘটতে পারে। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবকে সফল করার লক্ষ্যে বাংলাদেশে শুরু হয়েছে ডিজিটাল ভিলেজ নামের প্রকল্প।
বাংলাদেশে কৃষির বর্তমান অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে নতুন প্রজন্মকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের ডিজাইনে পূর্ণ সুবিধা প্রদান করবে ডিজিটাল ভিলেজ। এই প্রকল্পটি বাংলাদেশের জন্য এক আধুনিক ও সম্পূর্ণ কার্যকরী ডিজিটাল ভিলেজ সিস্টেম তৈরি করছে। এই প্রকল্পটি বাংলাদেশের গ্রামীণ উন্নয়নের জন্য আইওটি-নির্ভর সমস্যার সমাধান বাস্তবায়িত করার জন্য কম্পিউটার নিয়ন্ত্রণ, সেন্ট্রাল নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা, নেটওয়ার্ক, মাল্টিমিডিয়া প্রযুক্তি, সেন্সর প্রযুক্তি, মাল্টিমিডিয়া ডিসপ্লে পদ্ধতি এবং বৃহৎ তথ্য বিশ্লেষণ ব্যবস্থাপনার প্রযুক্তিকে সমন্বিত করছে। প্রকল্পটির প্রধান লক্ষ্য হলো-
-একটি সমস্যা সমাধানের মডেল তৈরির জন্য কম্পিউটিং এবং বৃহৎ তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে কৃষি ও প্রাণিসম্পদ বিশেষজ্ঞদের গবেষণার মাধ্যমে বাংলাদেশে কৃষি ও প্রাণিসম্পদের উন্নয়নের জন্য আরও ভালো সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা প্রদান করা।
-কৃষি ও গবাদিপশুর জন্য প্রয়োজনীয় খরচ কমানো এবং ফলন সর্বাধিক করতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবহার করা।
-উপযুক্ত বিপণন কর্মসূচির অধীনে তাদের আয় বাড়াতে কৃষক এবং পশুপালকদের জন্য বিক্রির বাজারকে প্রসারিত করা।
-উন্নত এবং কার্যকর প্রজনন দক্ষতা এবং হাতে-কলমে কৃষকদের প্রশিক্ষণ নির্দেশিকা প্রতিষ্ঠা করা।
-কৃষক এবং কৃষি বিশেষজ্ঞদের মধ্যে একটি পারস্পরিক সম্পর্ক স্থাপন করা যাতে কৃষকদের সমস্যা সমাধানের জন্য জ্ঞান অর্জন করা সহজ হয়।
-মাঠ পর্যায় থেকে কৃষকদের দক্ষতা উন্নতির মাধ্যমে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি করা, দুর্যোগ হ্রাস করা এবং কৃষকদের সার্বিক ব্যবস্থাপনা কার্যকরভাবে উন্নত করা।
কীভাবে ডিজিটাল ভিলেজ ব্যবস্থাপনা তৈরি হবে?
বাংলাদেশ ডিজিটাল ভিলেজ প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা নির্মাণের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ধাপগুলো হলো-
-আইওসি নির্মাণ
-ইন্টারনেট অব থিংস ল্যাবরেটরি নির্মাণ
-গ্রাম স্টেশনে কৃষি আইওটি সিস্টেম নির্মাণ
-গ্রাম স্টেশনে পশুসম্পদ আইওটি সিস্টেম নির্মাণ এবং
-গ্রাম স্টেশন পরিষেবা এবং সমন্বিত স্মার্ট কৃষি আইওটি হার্ডওয়্যার প্ল্যাটফর্ম নির্মাণ।
গ্রাম স্টেশন নির্মাণ : কৃষি আইওটি সিস্টেম (টার্মিনাল, মাটি এবং বায়ু সমন্বিত সেন্সর), একটি পশুপালন আইওটি সিস্টেম (গরুর এস্ট্রাস এবং স্বাস্থ্য মনিটর, গেটওয়ে) নিয়ে গ্রাম স্টেশন পরিষেবা নির্মাণ। এটি কৃষি তথ্যের নিরীক্ষণ এবং সংক্রমণ তথ্য প্রদান ব্যবস্থাকে কার্যকর করার মাধ্যমে কৃষক ও পশুপালকদের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য এবং সহায়ক পরিষেবা প্রদান করতে সক্ষম।
আইওসি : মাল্টিমিডিয়া কনফারেন্স সিস্টেম, ইন্টিগ্রেটেড সেন্সর ইনফরমেশন ডিসপ্লে সিস্টেম, সিকিউরিটি অ্যাকসেস কন্ট্রোল সিস্টেম এবং কম্পিউটার রুম সিস্টেমসহ আইওসি দৈনিক তথ্য সংগ্রহ, তথ্য নিরাপত্তা প্রদান এবং কৃষি তথ্য সংগ্রহ করে রিমোট কন্ট্রোল, রিমোট গাইডিং ও তথ্য প্রকাশের রিয়েল টাইম ভিজ্যুয়াল প্রদর্শনের যোগ্যতা অর্জন করবে।
প্রকল্পের প্রধান বৈশিষ্ট্য
১. কৃষি পরিবেশ পর্যবেক্ষণ : আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ এবং মাটির গুণাগুণ পর্যবেক্ষণ, প্রধানত বায়ুর তাপমাত্রা এবং আর্দ্রতা, আলোর তীব্রতা, মাটির তাপমাত্রা এবং আর্দ্রতা, কার্বন ডাই-অক্সাইড ঘনত্ব, মাটির পিএইচ এবং অন্যান্য সংবেদনশীল ডেটা সংগ্রহ করা। এর মাধ্যমে ফসল ও পশুসম্পদ প্রক্রিয়াকরণ, প্রকাশনা এবং অনুসন্ধানের কাজে ব্যবহার করা হবে। ব্যবহারকারী প্ল্যাটফর্মে সংশ্লিষ্ট এলাকার যাচাইকৃত তথ্যের মাধ্যমে পরিবেশের রিয়েল টাইম মনিটরিং, ডেটা ক্যোয়ারি, ডেটা প্রদর্শন এবং সংযুক্ত আরও অনেক কিছু দেখতে পাবেন।
২. দুগ্ধজাত গরুর শারীরবৃত্তীয় পর্যবেক্ষণ: গরুর শরীরের তাপমাত্রা শনাক্তকরণ, প্রজনন সময় শনাক্তকরণ এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে কৃষকদের অবহিত করাসহ ম্যানুয়াল পর্যবেক্ষণের ত্রুটিগুলো হ্রাস করা এবং পশুসম্পদ ব্যবস্থাপনার দক্ষতা বৃদ্ধি করতে সক্ষমতা অর্জন।
৩. কৃষি পরিষেবা স্টেশন : প্রকল্পটি বাংলাদেশের ১০০টি গ্রামে ১০টি মৌলিক কৃষি পরিষেবা স্টেশনকে উন্নীত করবে। এর পাশাপাশি তথ্যভিত্তিক কাজের মৌলিক পরিবেশ উন্নত করবে এবং হার্ডওয়্যার সরঞ্জাম ও সফটওয়্যার প্ল্যাটফর্মের ব্যবহারের সমন্বয় ঘটাবে। এই উন্নতির মূল লক্ষ্য বাংলাদেশের কৃষকদের জন্য কৃষি পরিষেবা স্টেশনগুলোর পরিষেবা দৃশ্যমান করা, যাতে কৃষকরা কৃষি বিষয়ক ইন্টারনেটের বুদ্ধিমান প্রয়োগের মাধ্যমে কৃষি বৈচিত্র্যের বিকাশের অভিজ্ঞতা লাভ করতে পারে।
‘অ্যাগ্রিকালচারাল ইন্টারনেট অব থিংস’ প্ল্যাটফর্মে স্থানীয় বিতরণ, পরিবেশ পর্যবেক্ষণ, ভিডিও পর্যবেক্ষণ এবং উৎপাদন বৃদ্ধি পর্যবেক্ষণের কাজ রয়েছে। প্ল্যাটফর্ম উন্নয়নের মধ্যে পরিবেশগত পর্যবেক্ষণ উপাদান, ভিডিও নজরদারি উপাদান, তথ্য পরিষেবা উপাদান এবং অন্যান্য উপাদান লাইব্রেরি অন্তর্ভুক্ত। পোস্ট নেটওয়ার্ক প্ল্যাটফর্মটি বাংলাদেশের কৃষি উৎপাদনের প্রক্রিয়া তথ্যকে বাস্তব সময়ে (রিয়েল টাইম) আয়ত্ত করবে এবং কৃষি উৎপাদনের ‘রিয়েল টাইম’ তথ্য সরবরাহে রিমোট ট্রান্সমিশন, কৃত্রিম বিশ্লেষণ ও বিস্তারিত তথ্য প্রদর্শন নিশ্চিত করবে। ডেটা ইন্টারঅ্যাকশনের মাধ্যমে বাংলাদেশ কৃষি তথ্যকেন্দ্রের সঙ্গে তথ্য লেনদেন করা হবে। আইওটি প্রযুক্তি, প্ল্যাটফর্ম অ্যাপ্লিকেশন, মোবাইল টার্মিনাল অ্যাপ অ্যাপ্লিকেশন এবং আরও অনেক কিছু ব্যবহার করে এই পরিষেবা স্টেশন উৎপাদনের ভিত্তি, বৈজ্ঞানিক গবেষণা, কৃষক, বিশেষজ্ঞ এবং আরও অনেক কিছুর জন্য অপারেশন প্ল্যাটফর্ম এবং অ্যাপ্লিকেশন ইন্টারফেস সরবরাহ করবে।
কীভাবে কাজটি হবে?
অ্যাম্বিয়েন্ট সেন্সর মনিটরিং সিস্টেম দ্বারা সংগৃহীত সেন্সর ডেটার জন্য বেশ কয়েকটি অবস্থা রয়েছে। প্রথম ভাগে, কৃষক বা বিশেষজ্ঞের কাছে মাটির পুষ্টি বিশ্লেষক/বায়ু বিশ্লেষক ধারণ করে অন-সাইট পরিবেশগত তথ্য সংগ্রহ করতে এবং পিছনের ক্লিপে ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সমন্বিত স্মার্ট কৃষি আইওটি হার্ডওয়্যার প্ল্যাটফর্মে প্রেরণ করতে পারবে।
দ্বিতীয় ধাপে অনলাইন মাল্টিসেন্সর কৃষি স্বয়ংক্রিয় পরিমাপ যন্ত্র দ্বারা সংগৃহীত পরিবেশ ডেটা এবং ভিডিও ডেটা সরাসরি ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সমন্বিত স্মার্ট কৃষি আইওটি হার্ডওয়্যার প্ল্যাটফর্মে প্রেরণ করা হবে।
তৃতীয় ধাপে দুগ্ধখামার এবং পশুসম্পদের ক্ষেত্রে দুগ্ধবতী গাভীর গতিবিধি এবং এস্ট্রাস নিরীক্ষণের পরিমাণের তথ্য সংগ্রহের জন্য গাভী এস্ট্রাস এবং স্বাস্থ্য মনিটর থেকে ডেটা সংগ্রহ করবে এবং তারপর একটি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সমন্বিত স্মার্ট কৃষি আইওটি হার্ডওয়্যার প্ল্যাটফর্মে প্রেরণ করবে।
চতুর্থ ধাপে দুধের গঠন ডেটা এবং পাস্তুরাইজেশন শনাক্তকরণ ডেটার বিশ্লেষণ, যা ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সমন্বিত স্মার্ট কৃষি আইওটি হার্ডওয়্যার প্ল্যাটফর্মে আপলোড করা হবে।
অন-সাইট ভিডিও মনিটরিং সিস্টেমটি ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক এবং ইন্টিগ্রেটেড স্মার্ট অ্যাগ্রিকালচারাল আইওটি হার্ডওয়্যার প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে রিয়েল টাইমে সংযুক্ত থাকবে এবং প্ল্যাটফর্মটি দূরবর্তীভাবে ইন্টারনেটের মাধ্যমে ভিডিও চিত্রগুলো গ্রহণ করতে এবং দেখতে পারবে।
সমস্ত ডেটা বা তথ্য ইন্টিগ্রেটেড স্মার্ট অ্যাগ্রিকালচারাল আইওটি হার্ডওয়্যার প্ল্যাটফর্মে প্রেরণ করা হবে। ব্যবহারকারীরা কম্পিউটার বা মোবাইল টার্মিনালের মাধ্যমে প্ল্যাটফর্মের তথ্য যাচাই-বাছাই করতে ও দেখতে পারবেন। এর মধ্যে রয়েছে- পরিবেশগত ডেটা দেখা, বিস্তারিত তথ্য ডিসপ্লেতে দেখা এবং অন-সাইট পর্যবেক্ষণ।
কৃষি আইওটি প্ল্যাটফর্ম ‘এমভিসি’ স্তরযুক্ত নকশা মডেল গ্রহণ করে। এটি একটি মাল্টি-টায়ার্ড আর্কিটেকচারের ওপর ভিত্তি করে যা ‘জেটুইই’ স্ট্যান্ডার্ডের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ এবং বি/এস আর্কিটেকচারের অধীনে প্ল্যাটফর্ম এবং ডিভাইসের মধ্যে তথ্য বিনিময় কার্যকর করে। সহজ ভাষায় বললে এই কৃষি আইওটি প্লাটফর্ম তার সেন্সরগুলো তথ্য সংগ্রহ ও তথ্য প্রকিয়াকরণের মাধ্যমে নির্ভুল পরামর্শ নিয়ে কৃষকের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করে একটি সমাধান প্রদান করতে সক্ষম হবে। বাংলাদেশে এরই মধ্যে এই ডিভাইসটি পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহৃত হয়েছে। আরও বৃহৎ পরিসরে তথ্যভান্ডার তৈরির মাধ্যমে প্লাটফর্মটি যেন আরও নির্ভুল তথ্য যাচাই-বাছাই করতে পারে সে জন্য প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। এই সমন্বিত পদ্ধতি কার্যকরভাবে ব্যবহৃত হলে কৃষক, কৃষি কর্মকর্তা ও বিশেষজ্ঞদের সমন্বিত এক প্লাটফর্মে পরিণত হবে, যেখানে কৃষিজমি বা গবাদিপশুর খামারে যেকোনো সমস্যা হলে দ্রুত সময়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে।
লেখক: শিক্ষক, কম্পিউটার বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়

You may also like...